শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪

সৌদিয়া গ্রুপ ২০২৩ সালের হজ্ব যাত্রীদের জন্য ১২ লক্ষেরও বেশী আসন বরাদ্দ করেছে

বুধবার, জুন ১৪, ২০২৩
সৌদিয়া গ্রুপ ২০২৩ সালের হজ্ব যাত্রীদের জন্য ১২ লক্ষেরও বেশী আসন বরাদ্দ করেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সৌদিয়া গ্রুপ – সৌদি এয়ারলাইন্স , ফ্লাইআডিল এবং সৌদি প্রাইভেট এভিয়েশন – ২০২৩ সালের হজ্ব মৌসুমের জন্য তার কার্যপরিকল্পনা ঘোষণা করেছে , যাতে সারা বিশ্ব থেকে হজ্ব - যাত্রীদের জন্য ১২ লক্ষেরও বেশী আসন বরাদ্দ করেছে । এই সমন্বিত পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে সৌদিয়া গোষ্ঠীর বর্তমান ১৬৪ টি বিমানের বছরের ব্যবহারের উন্নয়ন করা , যেখানে অতিরিক্ত ১২ টি বিমানের বহরের ব্যবস্থা রয়েছে । সৌদিয়া গ্রুপ জেদ্দা , রিয়াদ , দাম্মাম , মদিনা , তায়েফ এবং ইয়ানবুতে অবস্থিত সৌদি রাজ্যের ৬ টি বিমানবন্দরে ১০০ টিরও বেশি নির্ধারিত গন্তব্য এবং ১৪ টি মৌসুমি গন্তব্য থেকে হজ্ব যাত্রীদের পরিবহন করবে । ৪ হাজার ককপিট এবং কেবিন ক্রু মোট ৪২ টি ভিন্ন ভাষায় কথা বলতে পারে এবং ভ্রমণের সময় তারা অতিথিদের বিশেষভাবে আপ্যায়ন করবে ; যা সৌদি আতিথেয়তার প্রতিফলন । 

পরিকল্পনাটি সৌদিয়া গ্রুপের সমস্ত সহযোগী সংস্থাগুলির থেকে তাদের সেবার সমন্বয় নিশ্চিত করে , বিশেষ করে যারা হজ্ব - যাত্রীদের পরিষেবা প্রদানের সাথে সংশ্লিষ্ট , যেমন , সৌদিয়া অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্ডাস্ট্রিজ ( এসএইআই ) , সৌদি গ্রাউন্ড সার্ভিসেস ( এসজিএস ) , এবং সৌদি এয়ারলাইনস ক্যাটারিং কোম্পানি ( এসএওসিসি ) , যার সবগুলোই কাজ করবে পূর্ণ ক্ষমতায় এবং পুরো হজ্ব মৌসুম জুড়ে । সৌদিয়া এর লক্ষ্য হল সর্বোত্তম বিমান পরিবহন এবং লজিস্টিক পরিষেবা , সেইসাথে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সমস্ত স্থানে অন্যান্য সমন্বিত পরিষেবা প্রদান করা এবং আসা ও যাওয়ার সময় হজ্ব - যাত্রীদের সেবা করার জন্য যোগ্য কর্মী নিশ্চিত করা । সৌদিয়া গ্রুপের প্রধান হজ্ব ও ওমরাহ অফিসার জনাব আমের আলখুশাইল বলেছেন , “ আমাদের সঞ্চিত অভিজ্ঞতা , দক্ষ কর্মচারী এবং নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে সেরা প্রযুক্তিগত পরিষেবা প্রদানের জন্য সৌদিয়া গ্রুপ একটি নতুন হজ্বের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে প্রস্তুত , যা একটি মসৃপ ভ্রমণ অভিজ্ঞতার নিশ্চয়তা দেয় । 

এই কর্মপরিকল্পনাটি সুপ্রিম হজ্ব কমিটির নির্দেশের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ , যার নেতৃত্বে আছেন মহামান্য প্রিন্স আব্দুলআজিজ বিন সৌদ বিন নায়েফ বিন আব্দুলআজিজ , স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ; কেন্দ্রীয় হজ্ব কমিটির নেতৃত্বে আছেন মহামান্য প্রিন্স খালেদ আল - ফয়সাল , দুই পবিত্র মসজিদের কাস্টোডিয়ানের উপদেষ্টা , মক্কা অঞ্চলের গভর্নর ; এবং হজ্ব ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় এবং হজ্জ্ব যাত্রী অভিজ্ঞতা কার্যক্রমের সহযোগিতায় । আল খুশাইল সৌদি রাজ্যের অভ্যন্তরে এবং বাইরে হজ্ব ভ্রমণের আযোজনের সাথে জড়িত সমস্ত সংস্থার সাথে বেসামরিক বিমান চলাচলের সাধারণ কর্তৃপক্ষ ( জিএসিএ ) এর মতো বিমানবন্দরে বিভিন্ন সরকারী অংশীদারদের সাথে কর্মক্ষমতাকে একীভূত করার গুরুত্বও তুলে ধরেন । আল থুশাইল প্রকাশ করেছেন যে মদিনার প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ২১ মে সৌদি রাজ্যে আগত প্রথম ফ্লাইটগুলিকে সাদরে গ্রহণ করবে । সম্প্রতি , সৌদিয়া গ্রুপ একটি স্বতন্ত্র আধ্যাত্মিক পরিবেশে বিমান পরিবহন পরিষেবা প্রদানের মাধ্যমে এর পরিচালন অংশ বাড়ানো এবং এর সুনাম বাড়ানোর প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে , অনেক দেশে হজ্ব - যাত্রীদের সেবা করার জন্য বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সাথে বেশ কয়েকটি চুক্তি সম্পন্ন করেছে । এছাড়াও , সৌদিয়া গ্রুপ এর লক্ষ্য হল নিরাপত্তার মানগুলি সম্পূর্ণরূপে মেনে চলার সাথে সাথে কার্যক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করা , যা এর সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার । কর্মক্ষমতা পর্যবেক্ষণ দল , টার্মিনাল অপারেশন সেন্টার টিম , সেইসাথে ফলো - আপ এবং প্রাক - সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা দল সহ বিভিন্ন পথের মাধ্যমে সর্বোত্তম পরিষেবা প্রদান এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য কোম্পানিটি তার মানবিক এবং ডিজিটাল ক্ষমতাগুলিকে একত্রিত করেছে সমস্ত সেক্টর এবং এ্যাসঙ্গিক কর্তৃপক্ষের সাথে । এই সমস্ত দলগুলি সৌদিয়া এর সিনিয়র নেতৃত্বের সরাসরি ফলোআপ নিয়ে চব্বিশ ঘণ্টা কাজ করে ।

সৌদিয়া গ্রুপ ২০২৩ সালের হজ্ব মৌসুমে হজ্ব - যাত্রীদের জন্য ১২ লক্ষেরও বেশী আসন বরাদ্দ করেছে হজ্জ্ব - যাত্রীদের সেবার জন্য সরকারী সংস্থাগুলির সাথে যোগদানের প্রতিশ্রুতির উপর জোর দিচ্ছে । জেদ্দা , সৌদি আরব , সোমবার , জুন ১২ , ২০২৩ : সৌদিয়া গ্রুপ – সৌদি এয়ারলাইন্স , ফ্লাইআডিল এবং সৌদি প্রাইভেট এভিয়েশন – ২০২৩ সালের হজ্ব মরসুমের জন্য তার কার্যপরিকল্পনা ঘোষণা করেছে , যাতে সারা বিশ্ব থেকে হজ্ব - যাত্রীদের জন্য ১২ লক্ষেরও বেশী আসন বরাদ্দ করেছে । এই সমন্বিত পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে সৌদিয়া গোষ্ঠীর বর্তমান ১৬৪ টি বিমানের বছরের ব্যবহারের উন্নয়ন করা , যেখানে অতিরিক্ত ১২ টি বিমানের বহরের ব্যবস্থা রয়েছে । সৌদিয়া গ্রুপ জেদ্দা , রিয়াদ , দাম্মাম , মদিনা , তায়েফ এবং ইয়ানবুতে অবস্থিত সৌদি রাজ্যের ৬ টি বিমানবন্দরে ১০০ টিরও বেশি নির্ধারিত গন্তব্য এবং ১৪ টি মৌসুমি গন্তব্য থেকে হজ্ব যাত্রীদের পরিবহন করবে । ৪ হাজার ককপিট এবং কেবিন ক্রু মোট ৪২ টি ভিন্ন ভাষায় কথা বলতে পারে এবং ভ্রমণের সময় তারা অতিথিদের বিশেষভাবে আপ্যায়ন করবে ; যা সৌদি আতিথেয়তার প্রতিফলন । পরিকল্পনাটি সৌদিয়া গ্রুপের সমস্ত সহযোগী সংস্থাগুলির থেকে তাদের সেবার সমন্বয় নিশ্চিত করে , বিশেষ করে যারা হজ্ব - যাত্রীদের পরিষেবা প্রদানের সাথে সংশ্লিষ্ট , যেমন , সৌদিয়া অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্ডাস্ট্রিজ ( এসএইআই ) , সৌদি গ্রাউন্ড সার্ভিসেস ( এসজিএস ) , এবং সৌদি এয়ারলাইনস ক্যাটারিং কোম্পানি ( এসএওসিসি ) , যার সবগুলোই কাজ করবে পূর্ণ ক্ষমতায় এবং পুরো হজ্ব মৌসুম জুড়ে । সৌদিয়া এর লক্ষ্য হল সর্বোত্তম বিমান পরিবহন এবং লজিস্টিক পরিষেবা , সেইসাথে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সমস্ত স্থানে অন্যান্য সমন্বিত পরিষেবা প্রদান করা এবং আসা ও যাওয়ার সময় হজ্ব - যাত্রীদের সেবা করার জন্য যোগ্য কর্মী নিশ্চিত করা । সৌদিয়া গ্রুপের প্রধান হজ্ব ও ওমরাহ অফিসার জনাব আমের আলখুশাইল বলেছেন , “ আমাদের সঞ্চিত অভিজ্ঞতা , দক্ষ কর্মচারী এবং নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে সেরা প্রযুক্তিগত পরিষেবা প্রদানের জন্য সৌদিয়া গ্রুপ একটি নতুন হজ্বের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে প্রস্তুত , যা একটি মসৃপ ভ্রমণ অভিজ্ঞতার নিশ্চয়তা দেয় । এই কর্মপরিকল্পনাটি সুপ্রিম হজ্ব কমিটির নির্দেশের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ , যার নেতৃত্বে আছেন মহামান্য প্রিন্স আব্দুলআজিজ বিন সৌদ বিন নায়েফ বিন আব্দুলআজিজ , স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ; কেন্দ্রীয় হজ্ব কমিটির নেতৃত্বে আছেন মহামান্য প্রিন্স খালেদ আল - ফয়সাল , দুই পবিত্র মসজিদের কাস্টোডিয়ানের উপদেষ্টা , মক্কা অঞ্চলের গভর্নর ; এবং হজ্ব ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় এবং হজ্জ্ব যাত্রী অভিজ্ঞতা কার্যক্রমের সহযোগিতায় । আল খুশাইল সৌদি রাজ্যের অভ্যন্তরে এবং বাইরে হজ্ব ভ্রমণের আযোজনের সাথে জড়িত সমস্ত সংস্থার সাথে বেসামরিক বিমান চলাচলের সাধারণ কর্তৃপক্ষ ( জিএসিএ ) এর মতো বিমানবন্দরে বিভিন্ন সরকারী অংশীদারদের äl SAUDIA সাথে কর্মক্ষমতাকে একীভূত করার গুরুত্বও তুলে ধরেন । আল থুশাইল প্রকাশ করেছেন যে মদিনার প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ২১ মে সৌদি রাজ্যে আগত প্রথম ফ্লাইটগুলিকে সাদরে গ্রহণ করবে । সম্প্রতি , সৌদিয়া গ্রুপ একটি স্বতন্ত্র আধ্যাত্মিক পরিবেশে বিমান পরিবহন পরিষেবা প্রদানের মাধ্যমে এর পরিচালন অংশ বাড়ানো এবং এর সুনাম বাড়ানোর প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে , অনেক দেশে হজ্ব - যাত্রীদের সেবা করার জন্য বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সাথে বেশ কয়েকটি চুক্তি সম্পন্ন করেছে । এছাড়াও , সৌদিয়া গ্রুপ এর লক্ষ্য হল নিরাপত্তার মানগুলি সম্পূর্ণরূপে মেনে চলার সাথে সাথে কার্যক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করা , যা এর সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার । কর্মক্ষমতা পর্যবেক্ষণ দল , টার্মিনাল অপারেশন সেন্টার টিম , সেইসাথে ফলো - আপ এবং প্রাক - সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা দল সহ বিভিন্ন পথের মাধ্যমে সর্বোত্তম পরিষেবা প্রদান এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য কোম্পানিটি তার মানবিক এবং ডিজিটাল ক্ষমতাগুলিকে একত্রিত করেছে সমস্ত সেক্টর এবং এ্যাসঙ্গিক কর্তৃপক্ষের সাথে । এই সমস্ত দলগুলি সৌদিয়া এর সিনিয়র নেতৃত্বের সরাসরি ফলোআপ নিয়ে চব্বিশ ঘণ্টা কাজ করে ।

সৌদিয়া গ্রুপ হজ্ব - যাত্রীদের আন্তর্জাতিক প্রস্থান এবং অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল থেকে আগমন এবং ফিরতি ফ্লাইটের জন্য বোর্ডিং পাস প্রদান সহ অনেক বিশিষ্ট পরিষেবা প্রদান করে ; যেমন জেদ্দার কিং আব্দুল আজিজ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট ( কেএআইএ ) এবং প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আব্দুলআজিজ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট ( মদিনা এয়ারপোর্ট ) এ বিভিন্ন ভাষায় পারদর্শী ন্যাভিগেটর এবং কর্মচারীদের রাখা ; বিভিন্ন গন্তব্যে জমজমের পানির বোতল পাঠানোর ব্যবস্থা করা ; এবং আকাশপথে মদিনায় যেতে ইচ্ছুক হজ্জ্ব - যাত্রীদের জন্য অতিরিক্ত ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা । এটি অপারেশনের আকারের অনুপাতে কর্মী , শ্রম এবং স্থল সরঞ্জাম সহ অপারেশনাল প্রয়োজনীয়তাগুলি সুরক্ষিত করার পাশাপাশি দেওয়া হয় । তাই সৌদিয়া গ্রুপ হজ্ব প্রোটোকল , ভিড় ব্যবস্থাপনা , সংকট মোকাবেলা এবং জরুরী পরিকল্পনায় সাড়া দেওয়ার ক্ষেত্রে সমস্ত ফ্রন্ট - লাইন কর্মীদের প্রশিক্ষণের জন্য কাজ করছে । হজ্জ্ব - যাত্রীদের বিস্তৃত পরিষেবা প্রদান এবং তাদের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করার প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে , সৌদিয়া তার ফ্লাইটে ইসলামিক বিষয় হালনাগাদ করেছে যার মধ্যে রয়েছে ধর্মীয় অনুষ্ঠান , যা বিশেষ করে হজ্ব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য নিবেদিত । এই অন্তর্ভুক্তির মধ্যে রয়েছে ১৩৪ ঘণ্টারও বেশি বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান এবং ৫৯০ ঘণ্টার কোরআন তেলাওয়াত , এর পাশাপাশি আরবি , ইংরেজি , ইন্দোনেশিয়ান , চাইনিজ এবং হজ্ব - যাত্রীদের দ্বারা কথ্য অন্যান্য ভাষার মতো বিভিন্ন ভাষায় উপলব্ধ অনেক ইসলামিক অনুষ্ঠান রয়েছে । তাছাড়া , সৌদিয়ার ইন - ফ্লাইট এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেম ১৪ টিরও বেশি ভাষায় কীভাবে হজ্ব এবং ওমরাহ পালন করতে হয় সে সম্পর্কে শিক্ষামূলক ই - বুকের একটি অনন্য সংগ্রহ উপস্থাপন করে । সৌদিয়া গ্রুপ তাদের দেশে , হজ্ব মিশন , মক্কা ও মদিনায় উপস্থিত হজ্ব সংস্থাগুলি এবং হজ্ব বাসস্থান জুড়ে সরকারী সহযোগিতায় হজ্ব - যাত্রীদের তাদের নিজেদের ভাষায় সচেতনতামূলক বার্তা প্রদানের জন্য তাদের হজ্ব মৌসুম পরিকল্পনা কার্যক্রমও সম্প্রসারিত করেছে । এই বার্তাগুলিতে হজ্ব - যাত্রীদের সুবিধার্থে , কোম্পানি তাদের যাত্রা সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় স্পষ্টভাবে উল্লেখ করে , যার মধ্যে লাগেজ সম্পর্কিত বিশদ বিবরণ , এর ওজন এবং আকার , সেইসাথে হজ্ব শেষে দেশে ফেরার সময় বিমানবন্দরে এটি গ্রহণ করার প্রক্রিয়া , ইত্যাদি সবকিছু অন্তর্ভুক্ত আছে ।

এমআই


Somoy Journal is new coming online based newspaper in Bangladesh. It's growing as a most reading and popular Bangladeshi and Bengali website in the world.

উপদেষ্টা সম্পাদক: প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ

যোগাযোগ:
এহসান টাওয়ার, লেন-১৬/১৭, পূর্বাচল রোড, উত্তর বাড্ডা, ঢাকা-১২১২, বাংলাদেশ
কর্পোরেট অফিস: ২২৯/ক, প্রগতি সরণি, কুড়িল, ঢাকা-১২২৯
ইমেইল: somoyjournal@gmail.com
নিউজরুম ই-মেইল : sjnewsdesk@gmail.com

কপিরাইট স্বত্ব ২০১৯-২০২৪ সময় জার্নাল