বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

নানী

শনিবার, এপ্রিল ১৭, ২০২১
নানী

ডা. শেখ তানজিলা রহমান :

আমার মনে হয় আমাদের প্রত্যেকের জীবনে যতগুলো চমৎকার মানুষ থাকেন তাদের সবার মধ্যে অন্যতম একজন আমাদের নানী..

বিজ্ঞান বলে আমাদের মায়েদের জন্মের আগের থেকে মানে আমাদের মায়েরা যখন নানীর পেটে ভ্রুণ অবস্থায় থাকে তখন থেকে নানীর সাথে আমাদের সম্পর্ক...

যাই হোক,

নানীরা আমাদের জীবনের অন্যতম চমৎকার মানুষ বলার কারণ হলো,আমাদের জন্মের আগের থেকে আমাদের সুন্দরভাবে পৃথিবীতে আগমন নিশ্চিত করা এবং বড় করে তোলার পিছনে নানীদের অবদান অনস্বীকার্য.. 

আমার জন্মের সময় আমার মায়ের বয়স ছিলো ১৭ বছর এবং আমি জন্মেছিলাম ৩২ সপ্তাহের প্রিটার্ম বেবি হিসেবে..

খুব ছোট্ট একটা,অপুষ্ট মানুষ ছিলাম যাকে নাকি আমার নানীর এক হাতের তালুতে ধরে যেতো!

আমার জন্মের ও একদিন পর আমি চোখ মেলে তাকিয়েছিলাম..

হাসপাতাল থেকে যখন আমাকে সহ আম্মাকে নানুবাড়ি তে নিয়ে আসা হয়েছিলো তখন থেকে সেই বিড়ালছানা সমান আমাকে হাতের মধ্যে,বুকের মধ্যে নিয়ে বসে থাকতেন আমার নানী..

আমি কান্না করলে নীলচে হয়ে যেতাম,আমার নানী সারারাত আমাকে কাপড়ে জড়িয়ে নিয়ে বসে থাকতেন,ওম দিয়ে আমার শরীর গরম করে রাখতেন..

আমার মনে আছে,আমি যখন খুব ছোট ছিলাম,আমার ঠান্ডা লাগলে নানী আমার নাকে, গলায়,হাতের তালুতে,পায়ের তলায় সরিষার তেল গরম করে যত্ন করে মালিশ করে দিতেন আর আমি আরামে ঘুমিয়ে যেতাম..

এখনো নানুবাড়ি গিয়ে ঠান্ডা লাগলে নানী আমার পায়ের তলায়,হাতের তালুতে তেল ঘষে দেন আমার ঘুমন্ত অবস্থায়.. 

যখন কেবল হাঁটা শিখেছি তখন নানী আমাকে একজোড়া নুপুর বানিয়ে দিয়েছিলেন আর সাথে সোনার টিকলি..

নানীরা পুরোদস্তুর গৃহিনী হলেও নাতি নাতনী দের জন্য তাদের আঁচলে পয়সার ভান্ডার থাকে..

এখনো নানুবাড়ি গেলে আসার সময় নানী লুকিয়ে হাতের মধ্যে ৫০০ টাকার একটা নোট গুঁজে দেন..

নিতে না চাইলে প্রচন্ড মন খারাপ করেন..

 পুটুলি তে বেন্ধে চালের গুঁড়ার রুটি আর মুরগীর মাংস পাঠিয়ে দেন আমি বাসায় গেলেই..

নানী দের সব কিছু চমৎকার ভাবে রিসাইক্লিং করার অদ্ভুত ক্ষমতা থাকে..

আজ পর্যন্ত নানীর হাতে কোন কিছু নষ্ট হতে দেখিনি..

নানী কে যতগুলো শাড়ি দিয়েছি আমি তার সবগুলোই অল্প কয়েকদিন পরার পর এরকম চমৎকার কাঁথা বানিয়ে আমার জন্যই রেখে দেন...

(তার ভবিষ্যৎ নাতিন জামাই এর জন্য অবশ্য নতুন কাপড়ের কাঁথা ই বানিয়ে রাখছেন 🤣)

এই চমৎকার নীল নকশীকাঁথা টা হলো নানী কে আমার ইন্টার্নশীপের টাকা থেকে গিফট করা একটা তাঁতের শাড়ি..

আজকে আমাকে পাঠিয়ে দিয়েছেন সারপ্রাইজ গিফট হিসাবে❤️

বেঁচে থাকুক সবার নানী রা..

 নিঃস্বার্থ ভালোবাসার এক বিশাল ছাঁয়া হয়ে আগলে রাখুক আমাদের..


Somoy Journal is new coming online based newspaper in Bangladesh. It's growing as a most reading and popular Bangladeshi and Bengali website in the world.

উপদেষ্টা সম্পাদক: প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ

যোগাযোগ:
এহসান টাওয়ার, লেন-১৬/১৭, পূর্বাচল রোড, উত্তর বাড্ডা, ঢাকা-১২১২, বাংলাদেশ
কর্পোরেট অফিস: ২২৯/ক, প্রগতি সরণি, কুড়িল, ঢাকা-১২২৯
ইমেইল: somoyjournal@gmail.com
নিউজরুম ই-মেইল : sjnewsdesk@gmail.com

কপিরাইট স্বত্ব ২০১৯-২০২৪ সময় জার্নাল